আজ : সোমবার ║ ১৫ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

আজ : সোমবার ║ ১৫ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ║২রা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ║ ৬ই শাওয়াল, ১৪৪৫ হিজরি

চট্টগ্রাম- ১ আসন মীরসরাইয়ে দুই প্রতিদ্বন্দ্বীর গণসংযোগ ও পথসভা, অন্য প্রার্থীদের প্রচারণাও চলছে

এস এম জাকারিয়া, মিরসরাই (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি : চট্টগ্রাম-১ আসন, চট্টগ্রামের প্রবেশদ্বার মীরসরাইয়ের প্রার্থীরা প্রতীক বরাদ্দ পেয়ে তাদের নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণার মাধ্যমে প্রচার প্রচারণায় নেমেছেন। যদিও প্রার্থী সাতজন, কিন্তু চোখে পড়ার মতো গণসংযোগ করছেন মূল দুই প্রতিদ্বন্দ্বী নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মাহবুব রহমান রুহেল ও ঈগল প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী গিয়াস উদ্দিন।অত্র ১-আসন, মীরসরাইয়ের নৌকার প্রার্থী মাহবুব উর রহমান রুহেল ” স্মার্ট বাংলাদেশের রোল মডেল হবে মিরসরাই ” এই শ্লোগানে সামনে নিয়ে ২২ দফা নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা করে। উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে বসে এই ইশতেহার ঘোষণার সময়ে তার সাথে উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ আতাউর রহমান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক একেএম জাহাঙ্গীর ভূঁইয়া সহ দলীয় নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

 

রুহেল ঘোষিত ইস্তেহারের মধ্যে রয়েছে সর্বপ্রথম ‘স্মার্ট বাংলাদেশের রোল মডেল হবে মীরসরাই’ এছাড়াও আছে পরিকল্পিত আবাসন, পরিকল্পিত মডেল উপজেলা গঠন, সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্ক (আইটি পার্ক) নির্মাণ, দক্ষ জনশক্তি তৈরিতে কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠা, পর্যটন স্পটগুলোকে ইকো ট্যুরিজম হাব, নিরাপদ গ্রীণ মিরসরাই প্রতিষ্ঠা, দুই ও তিন ফসলী কৃষিজমি রক্ষা, বিদেশগমনকারীদের টেকসই চাকুরির নিশ্চয়তা প্রদান করতে প্রশিক্ষণ প্রদানের মতো চমকপ্রদ কর্মসূচি।

 

উক্ত ইশতেহারে আরও আছে নারী সমাজকে আধুনিক শিক্ষা ও সামাজিক নিরাপত্তা প্রদান, সম্প্রীতির মীরসরাই, সন্ত্রাস ও মাদকের বিরুদ্ধে সামাজিক আন্দোলন, খেলার মাঠ তৈরির উদ্যোগ, সাধারণ মানুষের দৌড় গড়ায় সকল সেবা প্রদান, পশ্চাৎপদ জনগোষ্ঠীর জীবন-মান উন্নয়ন, বঙ্গবন্ধু শিল্প নগরে স্থানীয় বেকার যুবকদের জন্য কোটা সংরক্ষণ করে কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা, সাধারণ মানুষের স্বাস্থ্য সেবার নিশ্চয়তার প্রদান, ভূমি ও গৃহহীন মানুষের আবাসন প্রকল্প বাস্তবায়ন, বীর মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য বীর নিবাস বৃদ্ধি করা, জেলে সম্প্রদায়ের জীবন মান উন্নয়ন ও তাদের পূণর্বাসন, উৎপাদিত ফসলাদি সংরক্ষণের জন্য হিমাগার নির্মাণ, মহান মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি বিজড়িত স্থান সমূহ সংরক্ষণ, বীর মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সদস্যদের সরকারি-সুযোগ সুবিধা নিশ্চিত করা।

 

এরপর নৌকা প্রতীকে প্রার্থী রুহেল করেরহাট ইউনিয়ন থেকে নৌকার নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেন। একদিনে করেরহাটের ৯ টি ওয়ার্ডের পশ্চিম জোয়ার, দক্ষিণ অলিনগর, চত্তরুয়া, কয়লা, বদ্ধভবানী, অলিনগর, মহাজনগ্রাম, হাবিলদার বাসায় উঠান বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। এসময় সেই বৈঠকগুলোতে জেলা, উপজেলা, ইউনিয়ন, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।গিয়াস উদ্দিন তার নির্বাচনী ইশতেহারে যেসব বিষয়কে গুরুত্বপূর্ণ বলে প্রাধান্য দিয়েছেন সেগুলো হলো মীরসরাইকে সন্ত্রাস, চাঁদাবাজ, কিশোরগ্যাং, দুর্নীতি ও মাদকমুক্ত করে ” স্মার্ট, সমৃদ্ধ ও সম্প্রীতির মীরসরাই ” গড়ে তোলা। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব শিল্পনগরে মীরসরাইবাসীকে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে চাকুরির ব্যবস্থার জন্য শিল্পমালিকদের দেশরত্ন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে নির্দেশনা দিয়েছেন সেই নির্দেশনা বাস্তবায়নে কাজ করা।

 

যোগ্যতা অনুযায়ী কর্মসংস্থান নিশ্চিতে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা, বীর মুক্তিযোদ্ধাদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে সকল নাগরিক সুবিধাসমূহ নিশ্চিত করা। অরক্ষিত গণকবর চিহ্নিত করে সংরক্ষণের উদ্যোগ, শিক্ষার মানোন্নয়নে শিক্ষাঙ্গনে দক্ষ পরিচালনা পরিষদ গঠন ও অবকাঠামোগত উন্নয়নে সর্বোচ্চ ভ‍‍ূমিকা। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সহশিক্ষা কার্যক্রম জোরদারের পাশাপাশি শিক্ষকদের নিয়ে শিক্ষার মানোন্নয়নে মতবিনিময়ের ব্যবস্থা।

 

যেসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে আইসিটি ল্যাব, লাইব্রেরী, শহীদ মিনার ডিজিটাল বিজ্ঞানাগার নেই সেসব প্রতিষ্ঠানে সেগুলো গড়ে তোলা। মীরসরাইবাসীর স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে কমিউনিটি ক্লিনিক, ইউনিয়ন উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্র, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সসহ বেসরকারি হাসপাতাল ও ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের সেবার মান তদারকি। তরুণ প্রজন্মকে মেধাবী হিসেবে গড়ে তুলতে পড়াশোনার পাশাপাশি ক্রীড়াঙ্গনে মনযোগী করতে মীরসরাই উপজেলা স্টেডিয়ামসহ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মাঠগুলোকে সবসময় খেলাধুলার উপযোগী রাখার চেষ্টা।

 

স্পোর্টস কমপ্লেক্স নির্মাণসহ বড় পরিসরে টুর্ণামেন্ট আয়োজন, দেশের লাইফলাইন খ্যাত ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের মীরসরাই অংশের ৩০ কিলোমিটারে প্রতিনিয়তই দুর্ঘটনায় অনেকেই প্রাণ হারাচ্ছেন, আবার অনেকেই সুচিকিৎসার অভাবে অকালেই পঙ্গু হচ্ছেন। তাই দুর্ঘটনায় আহতদের দ্রুত সেবা নিশ্চিতকরণে ট্রমা সেন্টার স্থাপনে উদ্যোগ, মীরসরাইয়ের পাহাড়ে অসংখ্য ঝর্ণা রয়েছে সেগুলোকে পর্যটকদের জন্য নিরাপদ করে গড়ে তুলে সরকারী রাজস্ব আয়ে উদ্যোগ। দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম কৃত্রিম লেক মহামায়া ও দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম সেচ প্রকল্প মুহুরী প্রজেক্টকে আরো কিভাবে পর্যটক বান্ধব করা যায় সেজন্য ব্যবস্থা, শিশুপার্ক গড়ে তোলা। মীরসরাইবাসীর বিভিন্ন সমস্যা জানতে এবং সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে মাসিক উন্মুক্ত মতবিনিময় সভার আয়োজন। মীরসরাই বিসিক শিল্পনগরীতে এখনো যেসব প্লট পতিত ও পরিত্যক্ত অবস্থায় আছে সেসব প্লটে শিল্প ইউনিট স্থাপনের জন্য শিল্পোদ্যোক্তাদের আগ্রহী করার পদক্ষেপ গ্রহণ, দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি ও ভেজালরোধে মোবাইল কোর্ট এবং খাদ্যদ্রব্যের মান নিয়ন্ত্রনে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহন। সবুজ মীরসরাই গড়ে তোলার লক্ষ্যে প্রতি বছর বিনামূল্যে বৃক্ষরোপনের উদ্যোগ ও বৃক্ষরোপনে উদ্বুদ্ধকরণ। বৃক্ষনিধনে জড়িতদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা, প্রতিবন্ধীদের সুশিক্ষিত জাতি হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে বিদ্যাপীঠ গড়ে তোলা এবং সরকার প্রদত্ত সকল সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করা, বেকার যুবকদের কর্মমুখী করে গড়ে তুলতে কারিগরি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন।

 

অত্র ১-আসন, মীরসরাইয়ের অপর আরেকজন হেভিওয়েট প্রার্থী স্বতন্ত্র থেকে ঈগল প্রতীকের মোহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন ” স্মার্ট, সমৃদ্ধ ও সম্প্রীতির মীরসরাই ” গড়ার প্রত্যয় ২৭ দফা ইশতেহার ঘোষণা করেছেন। মীরসরাই পৌরসদরের লতিফিয়া সড়কের প্রধান নির্বাচনী কার্যালয়ে ইশতেহার ঘোষণার সময়ে নেতাকর্মীদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন গিয়াস উদ্দিনের প্রধান নির্বাচনী সমন্বয়কারী ও কেন্দ্রীয় যুবলীগের সদস্য নিয়াজ মোর্শেদ এলিট, মীরসরাই উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক ও নির্বাচন সমন্বয়ক নুরুল হুদা, নির্বাচন সমন্বয়ক ও সাবেক ছাত্রনেতা কামরুল হাসান শাহীন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক নুরুল আলম, বারইয়ার হাট পৌরসভার সাবেক কমিশনার ইমাম হোসেন, খৈয়াছড়া ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান জাহেদ ইকবাল চৌধুরী, মীরসরাই সদর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি বরিউল হোসেন রবি, মায়ানী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক এস এম গোলাম সরওয়ার, জোরারগঞ্জ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি নিজাম উদ্দিন, আওয়ামী লীগ নেতা ফিরোজ উদ্দিন বাদল, নিজামপুর সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ইমাম উদ্দিন, মীরসরাই কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক এস এম সেলিম, মীরসরাই উপজেলা যুবলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি শেখ আবদুল আউয়াল তুহিন, চট্টগ্রাম উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সদস্য মাইনুল ইসলাম মিল্টন, কেন্দ্রীয় বঙ্গবন্ধু শিশু কিশোর মেলার দপ্তর সম্পাদক আছিফুর রহমান শাহীন প্রমুখ।

এদিকে জাতীয় পাটির মোহাম্মদ এমদাদ হোসাইন চৌধুরী – লাঙল প্রতীকের ও মাইকিং শোনা যাচ্ছে দিকেদিকে, যদিও অন্যদের তেমন উল্লেখযোগ্য কোনো প্রচারণা চোখে পড়ছেনা।

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email
Share on print
Print

আজকের সর্বশেষ সংবাদ